মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে সর্বস্তরের জনতার ঢল নেমেছে।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে সর্বস্তরের জনতার ঢল নেমেছে। স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন তারা।

বুধবার সকাল ৬টা ৩৮ মিনিটে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

তবে বড় রাজনৈতিক দলের ব্যানারে আসা নেতা-কর্মীদের উপস্থিতিতে স্মৃতিসৌধ এলাকায় মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। বেলা ১১টার দিকে ভিড় কিছুটা কমে আসে।

একে একে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য সাধারণ মানুষের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় স্মৃতিসৌধ।

এসময় ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব বয়সী ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের দেওয়া শ্রদ্ধাঞ্জলির ফুলে ফুলে ভরে ওঠে স্মৃতিসৌধের বেদি। করোনা উপেক্ষা করেই লাখো মানুষের ঢল নামে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের শ্রদ্ধা জানাতে। এবার শ্রদ্ধা জানাতে এসে করোনা থেকে মুক্তি ও অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়ার প্রত্যয় জানায় সর্বস্তরের মানুষ।

নগরীর কমার্স কলেজ এলাকা থেকে সাভার স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানাতে এসেছেন নাবিল আহমেদ। তিনি বলেন, করোনাকালীন ঘর থেকে বের হওয়া দায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এত মানুষ কষ্ট ও ঝুঁকি নিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে আসবে ভাবতে পারিনি। তারপরও মনে হয় আমাদের অনুভূতির জায়গাটা প্রবল। শ্রদ্ধাবোধ শক্ত। প্রবল অনুভূতি থেকে শ্রদ্ধাবোধ জানাতে এসেছি। শ্রদ্ধাবোধ জানাতে না এলে মানসিকভাবে শান্তি পেতাম না। এবারের আমাদের একটাই চাওয়া-পাওয়া করোনার থাবা থেকে দেশ মুক্তি পাক। মানুষ ফের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাক।

আশুলিয়ার চানঁগাও থেকে সপরিবারে আসা রাজু আহম্মেদ বলেন, সপরিবারে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সাভার এসেছি। সন্তানদের জানার দরকার শহীদ দিবস, বিজয় ও ভাষা দিবস কী? পৃথক পৃথক দিবসগুলোর তাৎপর্য বোঝানোর জন্যই সবাইকে নিয়ে এসেছি। করোনা নিয়ে মধ্যে একটা অজানা আতঙ্ক আছে। আল্লাহর কাছে দোয়া করি, করোনা থেকে সবাইকে রক্ষা করুন।

৫ বছরের বাচ্চা সাথীকে নিয়ে রাজবাড়ী বালিয়াকান্দি থেকে এসেছেন নাজমা। তিনি বলেন, দেশটা হোক শান্তির, করোনামুক্ত হোক বাংলাদেশ। সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানানো খুবই জরুরি।

করোনা মহামারির কারণে এবারের বিজয় দিবস এসেছে ভিন্ন এক প্রেক্ষাপটে। করোনা সংক্রমণের কারণে এবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। সাভার স্মৃতিসৌধে প্রবেশ মুখেই মাস্কা পরা ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারের জন্য সচেতন করা হচ্ছে। এ জন্য শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছেন। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll Up
Call-999